অবশেষে মেসি ইন্টার মিয়ামিতে অনুশীলন শুরু করলো

Sports Update
0
119
আর্জেন্টিনার অধিনায়ক তো মায়ামিতে

বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় মেসিকে মায়ামিতে তাকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত ভক্তদের। স্থানীয় একটি স্টেডিয়ামে পৌঁছেছেন লিওনেল মেসি। সে যেখানেই যাক না কেন,তাঁকে নিয়ে ভক্তদের অনেক অহংকার! লিওনেল মেসি মায়ামিতে পৌঁছানোর সাথে সাথে তাকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত ছিল কয়েক হাজার দর্শক ।

যুক্তরাষ্ট্রের মেজর লিগ সকারের দল ইন্টার মায়ামির মাঠের ফল খুবই বাজে। কিন্তু এ মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্রে যে ফুটবল ক্লাবটিকে নিয়ে বিশ্ববাসীর আগ্রহ, সেটি মায়ামিই। আর সেটি মেসির কারণেই। জুনের শুরুতেই মেসি সবাইকে অবাক করে দিয়ে ইন্টার মায়ামিতে যোগ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন। পিএসজির সঙ্গে চুক্তি শেষ হয়ে যাওয়ার পর তিনি কোথায় যাবেন, এ নিয়ে চলছিল বিস্তর গবেষণা। মেসির কাছে সৌদি আরবের ক্লাব আল হিলালের অবিশ্বাস্য অঙ্কের প্রস্তাবও ছিল। কিন্তু আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক শেষ পর্যন্ত বেছে নিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডাভিত্তিক ক্লাব ইন্টার মায়ামিকেই।

মেসির আগমন সাজসাজ রব ফেলেছে মায়ামিতে। মাঠের লড়াইয়ে মোটামুটি ব্যর্থ একটা দলকে নিয়ে এমন আগ্রহ সত্যিই অন্যমাত্রার। এরই মধ্যে মায়ামির সব ম্যাচের টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে। তাদের স্টেডিয়ামেও তৈরি করা হচ্ছে নতুন গ্যালারি। মেসি যেখানে আসবেন, সেখানে ছোট গ্যালারি দিয়ে কী আর হয়! সেখানে তো বড় গ্যালারির প্রয়োজন।

মঙ্গলবার মেসির বিমান মায়ামির মাটি স্পর্শ করার সঙ্গে সঙ্গেই ভালোবাসার আয়োজন শুরু হয়। বিমানবন্দরটি মায়ামির মাঠ থেকে খুব বেশি দূরে নয়। বহু ভক্ত বিমানবন্দরে গিয়েছিলেন আর্জেন্টাইন তারকাকে স্বাগত জানাতে। গান ধরেছিলেন তাঁরা, ‘আমরা তোমার অপেক্ষায় আছি মেসি

মায়ামির ভক্তরা এখন মেসির অভিষেকের অপেক্ষায়। সে মাহেন্দ্রক্ষণ ২১ জুলাই—লিগ কাপে মায়ামির মুখোমুখি হবে মেক্সিকান ক্লাব ক্রুজ আজুল। সেই ম্যাচ আমেরিকান–মেক্সিকান–কানাডিয়ানসহ অনেকেরই মিলনমেলায় পরিণত হবে।

রাউল পাতিনো একজন আর্জেন্টাইন। প্রায় এক যুগ আগে ফ্লোরিডায় এসেছিলেন জীবিকার সন্ধানে। তিনি উচ্ছ্বসিত নিজের দেশের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়কের যুক্তরাষ্ট্রে আগমনে। তাঁর মতে, মেসির আগমন যুক্তরাষ্ট্রের ফুটবলের জন্য এক ঐতিহাসিক ঘটনা। রাউলের বিশ্বাস, মেসি ইন্টার মায়ামিতে খেলতে আসায় যুক্তরাষ্ট্রের ফুটবলের গুণগত পরিবর্তন ঘটবে, ‘মেসি ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা ফুটবলার। ম্যারাডোনা কিংবা পেলের কাতারেই পড়েন তিনি। আগামী ১০ বছরের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ছোট ছোট বাচ্চাদের যদি আপনি জিজ্ঞেস করেন, তোমরা কোন খেলা পছন্দ কর, তাহলে তারা অবশ্যই ফুটবলের কথা বলবে। মেসির আগমনের প্রভাব এমনই।

বিশ্বে অনেক দেশ আছে সে দেশের ইয়ং থেকে বড়োরা শুধু আর্জিন্টিনাকে সাপোর্ট করে শুধু মাত্র মেসির জন্য। তেমনি একটি দেশ আমেরিকা বিশ্বের প্রধান প্রভাশালী দেশ। সে দেশের স্থানীয় একটি ক্লাব ইন্টার মিয়ামীতে আগামী সিজন খেলার জন্য মেসিকে চুক্তিবদ্ধ করেছে। সে ক্লাবের ১০ নম্বর জার্সি দিয়ে মেসিকে সম্মানে ভাসিয়ে দিলো বিশ্বের দরবারে।

মেসি যদিও এখনো মাঠে নামেননি। কিন্তু এরই মধ্যে মেসির যুক্তরাষ্ট্রে আসার অর্থনৈতিক প্রভাবটা বোঝা যাচ্ছে। এরই মধ্যে ইন্টার মায়ামির ম্যাচের টিকিটের মূল্য কয়েক গুণ বেড়ে গেছে। ক্রুজ আজুলের বিপক্ষে ইন্টার মায়ামির ম্যাচটির টিকিটের মূল্য সাধারণ সময়ে ছিল ২৯ মার্কিন ডলার। সেটিই এখন মেসির কারণে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩২৯ ডলারে। ইন্টার মায়ামিতে মেসি খেলবেন বার্সেলোনা ও আর্জেন্টিনার সাবেক কোচ জেরার্দো মার্টিনোর অধীন।

Leave a reply